শার্শায় কোয়াক ডাক্তার এখন শিশু বিশেষজ্ঞ

94

শার্শা (যশোর) প্রতিনিধি ॥ যশোরের শার্শার পল্লীতে এইচএসসি পাস হাসানুজ্জামান নামে শিশু রোগে অভিজ্ঞ ডাক্তার হিসেবে রোগী দেখে চলেছেন। তিনি প্রতিদিন প্রায় দেড় শতাধিক শিশু রোগী দেখছেন। রোগী দেখাতে সিরিয়াল দিতে হয়। রোগী দেখতে তার প্রথম ফি ১শ’ টাকা এবং পরবর্তী ফি ৫০ টাকা। বিষয়টি শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা অবহিত সত্বেও আজও কোন ব্যবস্থা নেয়নি।

আরো পড়ুন>>> বিমান সুইপারের জুতায় ২ কোটি টাকার স্বর্ণ
সূত্র মতে, শার্শা উপজেলার পল্লীতে চালিতাবাড়িয়ার রাঘবপুর গ্রামের জয়নাল আবেদীনের ছেলে হাসানুজ্জামান। শিক্ষায় তিনি এইচএসসি পাস। লেখাপড়া বাদ দিয়ে সে এখন শিশু রোগে অভিজ্ঞ ডাক্তার সেজে শিশুদের বিভিন্ন রোগের প্রেসক্রিপশন লিখছেন। তিনি প্রতিদিন সকাল থেকে রাত অবধি নিজ গ্রামে ও বাগআঁচড়া বাজারে ক্লিনিক খুলে রোগী দেখছেন।
রোগী দেখার বিষয়ে তার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, খুলনার পাইকগাছা থেকে ডিএমএফ করে ডাক্তারি করছেন। খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, তার ডিএমএফ ডাক্তারি সনদ ভুয়া। অভিযোগ রয়েছে তিনি প্রতারণার মাধ্যমে ডাক্তারি করে গ্রামের সাধারণ মানুষের সাথে প্রতারণা করছেন। হাতিয়ে নিচ্ছেন টাকা। আর এভাবে গত ৫/৬ বছরে হাসানুজ্জামান চালিতাবাড়িয়া বাজারে আলিশান বাড়ি তৈরি করেছে।
এ ব্যাপারে শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. অশোক সাহার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি বলেন, কোন ব্যাক্তি ডাক্তারি না পড়ে শিশু বিষয়ে অভিজ্ঞ না হয়ে শিশুদের চিকিৎসা সেবা দেওয়া আইনগত অপরাধ।
এ ব্যাপারে শার্শা থানা অফিসার ইনচার্জ আতাউর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে আমি জানি না। তবে তার বিরুদ্ধে যদি কেউ অভিযোগ করে তাহলে বিষয়টি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেব।
এ ব্যাপারে শার্শা উপজেলা নির্বাহী অফিসার পুলক কুমার মন্ডলের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এমন ঘটনা আমি জানিনা। তিনি বলেন ডাক্তার না হয়ে শিশুদের চিকিৎসা দেওয়া অপরাধ। তিনি বলেন, বিষয়টি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বিষয়টি প্রশাসনের দৃষ্টি কামনা করেছেন শার্শার সচেতন মহল।

LEAVE A REPLY