ধরা ছোঁয়ার বাইরে রাজগঞ্জের মাদক ব্যবসায়ী বাবলা

90

যশোর প্রতিনিধি ॥
সারাদেশে মাদক নির্মূলের অভিযান চালাচ্ছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। পার পাচ্ছেনা ছোট-খাট মাদক ব্যাবসায়ী ও মাদক সেবানকারী। এই অভিযানে অনেকেই বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন, আবার অনেকেই গ্রেফতার হয়েছেন। কিন্তু মফাস্বলে কিছু সরকার দলীয় ইয়াবা গডফাদাররা এখনো ধরা-ছোঁয়ার বাইরে। তেমনি যশোরের মণিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জে ডজনখানিক মামলার আসামি মাদক স¤্রাট সালাউদ্দিন বাবলা ওরপে ফেন্সি বাবলা।

স্থানীয় কিছু সরকার দলীয় ও ক্ষমতাধর এক অধ্যক্ষের ছত্রছাঁয়ায় থাকায় রমরমা মাদকের ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে এই বাবলা। বাবলা প্রশাসনের ধরা ছো্য়াঁর বাইরে থেকে উপজেলার পশ্চিম অঞ্চলে রমরমা মাদক ব্যবসা করছে। মাদক স¤্রাট বাবলা উপজেলার রাজগঞ্জ এলাকার বাসিন্দা। তার এই অপকর্ম নিয়ে বিভিন্ন সময়ে সংবাদমাধ্যমেও খবর প্রকাশিত হয়েছে।
নাম না প্রকাশে স্থানীয়রা জানিয়েছেন, দীর্ঘদিন ধরে বাবলা লোকচক্ষুর অন্তরালে ঝাঁপা জেলা প্রশাসক ভাসমান সেতুর পূর্বপাশে অবস্থিত গাড়ি পাকিং স্পটে তার পাকিং ব্যবসার পাশাপাশি প্রশাসনের চোখে ধূলা দিয়ে অবৈধ মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। মোটরসাইকেলে করে বিভিন্ন স্থানে ইয়াবা বিক্রি করছে প্রকাশ্যে। প্রতিদিন সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত বিভিন্ন এলাকার যুবকরা তার কাছে আসছে মাদক নিতে।

মাদক বেঁচাকেনার জন্য সে জেলা প্রশাসক ভাসমান সেতু, ঝাঁপা পার্ক, রাজগঞ্জ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শহীদ মিনানের পাশে, বঙ্গবন্ধু ভাসমান সেঁতুর পাশে , মোবারকপুর শ্মাশান ঘাটসহ বিভিন্ন এলাকায় নিরাপদ ঘাঁটি হিসাবে বেচে নিয়েছে। এসব জায়গায় মাদক বেঁচাকেনার স্পট সৃষ্টি করেছে এ মাদক ব্যবসায়ী বাবলা। ২০০৯ সাল থেকে মাদকের সাথে জড়িত সে। গ্রাম এলাকা হওয়ায় সুবাদে প্রশাসনের ধরা ছোঁয়ার বাইরে রয়ে গেছে এই মাদক স¤্রাট বাবলা।
পুলিশ সূত্রে জানাগেছে, ২০০৯ সাল থেকে কয়েকবার গ্রেফতার হলেও ঠিকই আইনের ফাঁক দিয়ে বের হয়ে যায়। কয়েকবার কারাভোগ করার পর সে বাইরে এসেই আগের ব্যবসায় ফিরেছে বাবলা। বাবলার নামে মাদক, চাঁদাবাজি, অস্ত্র, অপহরণ, প্রতারণাসহ এক ডজন মামলা রয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য চলমান মামলা জি আর ২৫৮/১৯ (ইয়াবা), জি আর ১/১৩, এসটিসি ১১৫/১৪ (অস্ত্র মামলা), জি আর ২৯২/১৯, এসটিসি ৩২৪/১৩ (চাঁদবাজি), জিআর ২৩৩/১০ (অপহরণ) জিআর ২৬১ /১০ (প্রতারণা) জিআর ৪৮/৯ ফেনসিডিল) সহ বহু মামলা রয়েছে।

 

LEAVE A REPLY